বাংলার অবশ্যম্ভাবী ৭১

বাংলার অবশ্যম্ভাবী ৭১


আমি বুঝে উঠতে পারিনি কেন শকুনের দল
আমাকে দমাতে চায়,
কুটকৌশলে আমি হেরে গিয়ে জিতিল দেখি
ঐ জমিদার রায়।

বুদ্ধ আমি হাল ছেড়ে পাল খুলে পশ্চাৎ-
মুখী হলাম ঐ যাত্রায়,
কত ঠকে ঠেকে পরম মায়ায় আবার
উঠিলাম ভাইয়ের নায়।

পাষাণ ভাইটি টুটিচেপে শুরুতেই জিভ
কাটিতে চাইল হায়,
না পারার বেদনায় পথের কোনায় কোনায়
লেংচি মারিত পায়।

পিঠ চাপড়ে মাথায় হাতে নানান কায়দায় পকেট
ভরিত মায়ের আয়,
পথ পরিক্রমায় ভাইটি আমায় চুলের গোছা ধরে
চুবাতে চাইত নর্দমায়।

কত দেনদরবার ভাগ পাব আমার কে জানিত
সে মারিত চায়,
ধর্মের টানে স্বার্থ বলিদানে সাহস যোগায়
ঘরের কিছু হীন ছায়।

আমার ভাগের অংশ পেতে শালিশ বসিল
শেষের ছয় দফায়,
দফার জোরে শালিশের পরে পাঞ্জা লড়িলাম
কে কাকে চায়।

অভূক নির্ঘুম হতাশায় নিঝুম পথের সন্ধানে
আমি অসহায়,
যখনি দেখিলাম ভাই রূপী ডাকাত ছিনিল
আমার পাঞ্জার রায়।

মার্চের দৃশ্য অবাক বিশ্ব লৌহ- বর্ম পরিলাম
হয়ে নিরুপায়,
কি যেন ভাবিয়া লাঠিসোটা নিয়া পাশের
লোকেরা হইল সহায়।

বিষের-বাদানুবাদ স্বজন- হারা রাত কোন প্রশ্নের
না দিল তারা সদুত্তর,
অবশেষে যা ছিল হবার ইতিহাস গড়ার বাংলার
অবশ্যম্ভাবী একাত্তর।

ইলিয়াছ মাহমুদ।। ফরিদগঞ্জ।। চাঁদপুর
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১

Share on facebook
Facebook
Share on google
Google+
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on pinterest
Pinterest

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *